May 08, 2021

এইমাত্র পাওয়া সংবাদ

প্রতারনায় ছিল ইকবালের নেশা অবশেষে কারাগারে।

বিশেষ প্রতিনিধিঃ চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি উপজেলার সংহাই গ্রামের মৃত জোনাব আলীর ছেলে মোঃ ইকবাল হোসেন এখন কারাগারে।জানা যায় প্রতারনার মামলায় কারাদন্ডে দন্ডিত সাজাপ্রাপ্ত আসামি হয়ে সে ও তার সহযোগীরা এতদিন পলাতক থাকার পর গত বুধবার রাত আনুমানিক ১১:৩৬ মিনিটে শাহরাস্তি মডেল থানার পুলিশ ফেরুয়া বাজার থেকে মোটর সাইকেল যোগে পালিয়ে যাওয়া অবস্থায় তাকে আটক করে পরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরন করা হয়।জানা যায় এতদিন সবাই ধরা ছোয়ার বাহিরে পলাতক থাকলে অবশেষে তাকে পালানোর কাজে সহযোগীতা করা কথিত ইমন নামে সেই ব্যক্তি বাকিদের আত্নগোপনে লুকিয়ে রেখেছেন অনত্র। এতে বিব্রত ভুক্তভুগীর পরিবার তবে তারা বাকিদের গ্রেফতারের পাশাপাশি কথিত ইমনকে পুলিশ হেফাজতে আটক রেখে সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের গ্রেফতারের দাবী জানিয়ে জেলা পুলিশ সুপার এবং ওসি মহোদয়ের আসন্ন হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।খোঁজ নিয়ে জানা যায় মোঃ ইকবাল হোসেনের অপর সহযোগী মনোয়ারা বেগম স্বামী ফারুক হোসেন ঠিকানা একই হলেও গ্রাম আয়নাতলী এবং বিল্লাল হোসেন তার পুরো পরিচয় জানা না গেলেও একই উপজেলার বলে জানা যায়।মামলার তথ্য সুত্রে জানা গেছে জনাব মোঃ আজিজুল হক পাটোয়ারীর দায়ের করা এই মামলার আসামি মোঃ ইকবাল হোসেন ও তার সহযোগী মনোয়ারা বেগম এবং বিল্লাল হোসেন। তাদের উভয়ের সাথে বাদীর পূর্বে পরিচিত সুবাদে বিগত ২০১৭ সালে আসামিগন বাদীকে পুরাতন লোহা দেওয়ার কথা বলে ১২ লক্ষ টাকার উপরে নেন  আসামিগন। ওই ঘটনায় বাদী জনাব মোঃ আজিজুল হক পাটোয়ারী ঢাকা জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোটে ৪২০/৪০৬/৫০৬ ধারায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় দীর্ঘ শুনানি শেষে ২০২০ সালে আদালত রায় দেন। আদালত অত্র মামলার অভিযুক্তদের দন্ড বিধির ৪১৭ ধারার শাস্তিযোগ্য অপরাধের সন্ধেহাতীতভাবে প্রমানিত হওয়ায় তাদের প্রত্যাককে দোষী সাব্যস্তক্রমে উক্ত অভিযোগের দায়ে ১ বছরের সশ্রম কারাদন্ড এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১ মাসের সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত করেন।শুধু এই চক্রকে সাথে নিয়ে প্রতরানা শেষ নয় মোঃ ইকবাল হোসেনের তার প্রতারনার শিকার ভুক্তভুগী মোঃ ঈমান হোসেন নামে এক ব্যক্তির কাছ থেকে তার ভাই মনির হোসেন সহ ইকবাল তার সহযোগীদের নিয়ে দলিল করে দিবে বলে প্রতারার মাধ্যমে প্রলোভন দিয়ে হাতিয়ে নেন লক্ষ টাকা আর এই ঘটনা ভুক্তভুগী মোঃ ঈমান হোসেন বলেন এ ব্যপারে আমি প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেছি।তাদের হাতে প্রতারনার শিকার এ ভাবে আরো অনেক ভুক্তভুগী রয়েছে।তারা মোঃ ইকবাল হোসেনের গ্রেফতারের পর থেকে সবাই তাদের আইনি অধিকার পেতে সোচ্চার হন।সেই সাথে এ সকল অভিযোগের প্রতারনায় জড়িত মোঃ ইমন ও মোঃ মনির হোসেন সহ অন্যানদের গ্রেফতারের দাবী উঠে আসে। মোঃ ইকবাল হোসেন পেশায় শিক্ষকতা হলেও যার অন্তরালে করতো প্রতারনা এটি ছিল তার নেশা।দেশের বিভিন্ন স্থানে  প্রতারনার মাধ্যমে হাতিয়ে নিতেন লক্ষ লক্ষ টাকা পরে হয়ে যেতেন লাপাত্তা।কেউ তার বিরুদ্ধে কথা বললে তাকে মামলাবাজ ও প্রতারক বানিয়ে গনমাধ্যম ও পুলিশ প্রশাসনকে ভুল তথ্য দিয়ে হয়রানী করতেন এমন নজিরের অভাব নেই। সব শেষে গত বুধবার শাহরাস্তি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জনাব মোঃ আব্দুল মান্নানের নেতৃত্বে থানা পুলিশের বিশেষ টিম অভিযান পরিচালনা করে তার নিজ থানা এলাকা ফেরুয়া বাজার থেকে মোটর সাইকেল যোগে পালিয়ে যাওয়া অবস্থায় রাত ১১:৩৬ মিনিটে আটক করে।IMG-20210423-WA0000-1

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *