June 22, 2018

এইমাত্র পাওয়া সংবাদ

শাহরাস্তি সূচিপাড়া দক্ষিন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জামায়াত লেবাজধারী গোলাম মস্তফার পতন এলাকাবাসির আনন্দ উল্লাসা পরাজীত প্রার্থী মস্তফা জামায়াত শিবিরের সহযোগীতায় নৌকার প্রতিক জ্বালিয়ে বিদ্রহী প্রর্থী মাসুদ আলমের সমর্থকদের হয়রানি করার ষড়যন্ত্র

শাহরাস্তি সূচিপাড়া দক্ষিন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জামায়াত লেবাজধারী গোলাম মস্তফার পতন এলাকাবাসির আনন্দ উল্লাসা পরাজীত প্রার্থী মস্তফা জামায়াত শিবিরের সহযোগীতায় নৌকার প্রতিক জ্বালিয়ে বিদ্রহী প্রর্থী মাসুদ আলমের সমর্থকদের হয়রানি করার ষড়যন্ত্র
শাহরাস্তি সূচীপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী থানা যুুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাসুদ আলম পাটোয়ারী। মাসুদ আলমের জনতার ঢল দেখে অপর প্রার্থী জামায়াতের লেবাসদারী গোলাম   মোস্তফা ষড়যন্ত্রভাবে তাহার ঘুন্ডবাহিনী দিয়া সাজানো নাকট সাজাইয়া ইউনিয়ন বাসীর মধ্যমনি মাসুদ আলমকে শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে কথিত ভ্রাম্যমান আদালত দেখাইয়া ৩ মাসের কারাদন্ড দেন। গত ৩০ এপ্রিল রোজ শনিবার ঐদিন মাসুদ আলম স্বপক্ষে ইউনিয়নবাসীর প্রায় ৮ হাজার জনতা এক শান্তিপূর্ণ র‌্যালী করেন। তাহার জনপ্রিয়তা দেখে গোলাম মোস্তফা দিশেহারা হয়ে প্রশাসনের সহযোগিতায় নিয়ে তাহার বাড়ীর সামনে ভ্রাম্যমান আদলাত বসায়। যাহা সম্পূর্ণভাবে বেআইনি। দেশের যে কোন ব্যক্তি র‌্যালী করতে পারেন। গোলাম মোস্তফা কোন আওয়ামী লীগের লোক নয়। তাহার ছাত্রজীবনে শিবির করতেন। পরবর্তীতে জামায়াত, জাতীয় পার্টিতে সর্বশেষ বিএনপিতে যোগদেন। বিএনপি ক্ষমতা থাকালীন ২০০১ সালে সূচীপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়অফিস কক্ষ থেকে জাতির জনকের ছবি পায়ে মুছিয়ে জ্বালাইয়াছেন। সেই অপরাধি নানান তদবির করে আওয়ামীলীগে যোগদান করেন। তিন তিন বার জামায়াত শিবিরের সহযোগিতায় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিশেষ একটি মহলের সহযোগিতায় তদবিরের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন নেন। অথচ আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতা যাহারা মনোনয়ন চেয়েছেন তাদেরকে না দিয়ে এই জামায়ত লেবাসদারী গোলাম মোস্তফাকে মনোনয়ন দেওয়াতে এলাকার বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকেরা তাহাকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করেন। বর্তমানে কোন এলাকাই গোলাম মোস্তফার সমর্থক নেই। তাই তিনি দিশেহারা হয়ে মাসুদ আলমকে জেলে আটকিয়ে  রেখে কেন্দ্র দখল করিয়া ৭ মে বিজয় লাভ করবেন। জনতা তাহা প্রতিহত করবেন বলে ঘোষণা দেন।  মাসুদ আলমকে কারাগারে নেওয়ার পর এলাকার সকল স্তরের মানুষ ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় যেভাবে গজিয়ে উঠছেন আজকের সূচীপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের চিত্র মাসুদ আলমের পক্ষে। ইউনিয়নের ও শাহরাস্তি ইতিহাসে এই ধরনের কোন জনসমর্থন কেই লাভ করতে পারেন নাই। তাহার মুক্তিতে এলাকার মসজিদে মিলাদ মাহফিলসহ সভা সমাবেশ করে যাচ্ছে। গোলাম মোস্তফা কেবল মাত্র তাহার নিজ পাড়ায় নিজ ঘরে বসিয়াছেন নির্বাচনীয় গণসংযোগ করিতে পারে না। কেবল এখন তার একমাত্র ভরসা শাহরাস্তি থানার পুলিশ। এলাকাবাসী জানায় পুলিশ পাহারা দিয়ে কেন্দ্র দখল করা হলে গোলাম মোস্তফা কবর রচিত করা হবে। ইউনিয়নের সকল নির্বাচনী কেন্দ্র জনতা তুলে দেন। মাসুদ আলম বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক আছেন থাকবেন। সুযোগ সন্ধানী গোলাম মোস্তফা আবার চলে যাবেন নিজ ঘরে। এলাকার প্রায় ৭শত লোকের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে কেন্দ্র দখল করার পায়তারা করছেন। নির্বাচনে আচরণ বিধি গোলাম মোস্তফা লংঘন করছেন। এলাকার হাজার হাজার জনতার গণদাবী নির্বাচনী কমিশনের কাছে সুষ্ঠভাবে নির্বাচন হবে । সরকার সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচন করেছে কোন কারচুপি হয়নি। গোলাম মস্তফা কয়েকটি ভোট কেন্দ্র দখল করার চেষ্টা করছে। সর্বশেষ ৭নং ওয়ার্ড সাংহাই কেন্দ্র থেকে তিনি পালাইয়া যায়। অভিযোগে জানাযায় মৃত্য এসহাক মিয়ার পুত্র মোঃ বিল্লাল হোসেন পুলিশ কনেশটেবল বলিশাল বিভাগে কর্মরত রয়েছে তিনি ছুটি নিয়ে এলাকায় আসিয়া জমায়াত লেবাস ধারী গোলাম মস্তফার পক্ষে জাল ভোট প্রদান করেছে এবং পুলিশের উর্ধতন কর্মকতাদের নাম বিক্রি করেছেন। পরবর্তীতে জনতার প্রতিরোধের মুখে পুলিশ কনেশটেবল বিল্লাল পালাইয়া যায়। এই বিষয় ‍নিয়ে  এলাকায় প্রতিবাদ হচ্ছে।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *