August 08, 2020

এইমাত্র পাওয়া সংবাদ

সূত্রাপুরে ফ্ল্যাট দেয়ার নামে ১০ লক্ষ হাতিয়ে নেয় একটি প্রতারক চক্র ৪৩ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন ভুক্তভুগি সুব্রত চন্দ্র ঘোষ।

230205kalerkantho_pic

রাজধানী সূত্রপুর থানাধীন ২/১ কে জি গুপ্ত লেন লক্ষীবাজার লেন এর প্রতারক চক্র খন্দকার কাউসার সায়মন, সাফায়েত খন্দকার সিয়াম, সামিয়া খন্দকার সিনথি এদের স্থায়ী ঠিকানা বোয়ালিয়া, জেলা ফরিদপুর থেকে ঢাকা আসিয়া প্রতারণা আর ব্লেকমেইল তাদের পেশা ও নেশা। এই চক্ররা দেশের সরল শান্ত প্রকৃত লোকদেরকে প্রতারণার জালে ফেলে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এদের পিছনে রয়েছে বিশাল একটি চক্র। এদের প্রতারণার শিকার হন এক নিরিহ ব্যক্তি, তিনি হলেন সুব্রত চন্দ্র ঘোষ, পিতা বাবুল লাল ঘোষ, মাতা আলো রাণী ঘোষ, হোল্ডিং নাম্বার ১৯ পুষ্পরাজ সাহালেন পোস্তা-লালবাগ, ঢাকা। বিগত ১৯/০৭/২০১৬ ইং তারিখে সূত্রাপুরে ফ্ল্যাট দিবে বলিয়া ১০ লক্ষ টাকা নেয়। কথা থাকে যে ২০২০ সালের মধ্যে ফ্ল্যাটটি রেজিট্রেশন করিয়া বুঝিয়ে দিবে। ১২ লক্ষ টাকা ধারর্য হয়। বাকি ২ লক্ষ টাকা ফ্ল্যাট বুজিয়ে দেয়ার পর দিবে বলিয়ে একটি বায়নাপত্র দলিল হয় যাহা ৩০০ টাকা দামের মূল্যে স্টাম্প এ খন্দকার কাউসার সায়মন গংরা সাক্ষর করেণ।  সুব্রত চন্দ্র ঘোষ দীর্ঘদিন খন্দকার কাউসার সায়মন গংদের কাছে গেলে আজ কাল ফ্ল্যাট দিবে বলিয়া ঘুড়াচ্ছে অথচ এই প্রতারক চক্র  খন্দকার কাউসার সায়মন অঙ্গিকার নামা বায়নাপত্র ফ্ল্যাটটি অন্য লোকদের কাছে বিক্রি করেণ সুব্রত চন্দ্র ঘোষ প্রতিবাদ করলে  তাকে মিথ্যা মামলা জাড়ানোর হুমকি দেয়। এই প্রতারক চক্ররা ফ্ল্যাট ব্যবসায়র অন্তরালে করতে অবৈধ মাদক ব্যবসায় বলে জানা যায়। বায়নাকৃত ফ্ল্যাটের তফসিলঃ জিলা-ঢাকা, থানা ও সাব রেজিষ্ট্রী অফিস সূত্রাপর অধীন। ঢাকা কালেক্টরীর তৌজভূক্ত। মৌজা সাবেক শহর ঢাকা ১নং ওয়ার্ডের ৫৬ নং সিটের এস, এ,- ৩নং সূত্রাপুর মৌজাস্থিত, ৯নং সিট ভুক্ত।

খতিয়ান নং-সি, এর, ১৩২৭৮, এস,এ, ৪০৩৭ নং আর,এস, ১০০৭ নং ঢাকা সিটি জরীপে ৩১৫২ নং খাতিয়ানে ৪২/১৭ নং জোতভূক্ত।

দাগ নংঃ সিিএস, ২৯৮ ( দুইশত আটানব্বই)। নং দাগ এস,এ ৬১১৩ (ছয় হাজার একশত তের) নং দাগে, আর,এস ৯৮৪৯ নং  দাগে ভূমির ২য় তলার ফ্ল্যাট ১৩৯/১ রেববী মহন দাস ও হোল্ডিং এর সম্পত্তি বঠে যাহার চৌহদ্দি উত্তরের রাস্তা দক্ষিনে হাফেজ পূর্বে মমিন পশ্চিমে রহিম অঙ্গিকার নামায় এইসব তথ্য লিপিবদ্ধ থাকা সত্ত্বেও ফ্ল্যাটটি দিচ্ছে না এই প্রতারক চক্র  সুব্রত চন্দ্র ঘোষ কে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ভয় দেখায় সাফায়েত খন্দকার সিয়াম। তিনি নাকি ৪৩ নাম্বার ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক। এ বিষয়ে সুব্রত চন্দ্র ঘোষ১৫/০১/২০২০ ইং তারিখে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় ও ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার বরাবর পৃথক পৃথক অভিযোগ দায়ের করেন খন্দকার কাউসার, সায়মন গংদের বিরোদ্ধে। এইসব তথ্য সুব্রত চন্দ্র ঘোষ থেকে সংগ্রহ করা।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *