July 16, 2019

৬৪ জেলায় বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠনপূর্বক সকল আঞ্চলিক যুদ্ধাপরাধীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে মানববন্ধন

IMG_6344
লিয়নঃ ০৮ জুলাই ২০১৯, রোজ সোমবার সকাল ১১.৩০ মিনিটে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। বক্তারা বলেন ৬৪ জেলায় বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন ও যুদ্ধাপরাধী মীর কাসেম আলীর সেকেন্ড ইন কমান্ড কুখ্যাত আলবদর নেতা আবু নাসের মোহাম্মদ আব্দুজ জাহের, সাকা চৌধুরীর সেকেন্ড ইন কমান্ড কুখ্যাত রাজাকার ফজলে করিম ওরফে জুইন্ন্যা ও চট্টগ্রামের কুখ্যাত আলবদর কমান্ডার মাওলানা আবু তাহেরসহ সকল আঞ্চলিক যুদ্ধাপরাধীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার, বিচার ও ফাঁসির দাবী করেন। মানববন্ধন কর্মসূচীটি সংগঠনের সদস্য সচিব শেখ নাসির উদ্দিনের সঞ্চালনায়, আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ মোহাম্মাদ আলী আমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন অনুষ্ঠানে বক্তাগণ বলেন, শুধুমাত্র কয়েকজন রাজাকারের মাস্টার মাইন্ডদের বিচার জনগণ চাইনি। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকারের প্রতি জনগণের চাওয়া পাওয়া ছিল, ৭১ এর রাজাকার, আলবদর, আলশামস বাহিনীর সকল কুখ্যাত ও চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিশ্চিত করতে হবে। ‘আঞ্চলিক যুদ্ধাপরাধী নির্মূল কমিটি-বাংলাদেশ’ এর আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ মোহাম্মদ আলী আমান বলেন, যুদ্ধাপরাধী মীর কাসেম আলীর সেকেন্ড ইন কমান্ড কুখ্যাত আলবদর নেতা আবু নাসের মোহাম্মদ আব্দুজ জাহের, সাকা চৌধুরীর সেকেন্ড ইন কমান্ড কুখ্যাত রাজাকার ফজলে করিম ওরফে জুইন্ন্যা ও চট্টগ্রামের কুখ্যাত আলবদর কমান্ডার মাওলানা আবু তাহেরসহ সকল যুদ্ধাপরাধীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও বিচার করতে হবে। বীর মুক্তিযোদ্ধা আমান আরো বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকারদের পক্ষে কিছু কিছু নামধারী মুক্তিযোদ্ধা অর্থ ও ক্ষমতা লোভে পড়ে রাজাকারদের নানাভাবে সহযোগীতা করার কথা শোনা যায়, এসব নামধারী মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যপারে সরকার ও জনগণকে সচেতন থাকার আহ্বান জানান। সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ও বক্তাগণ বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের প্রতি ৬৪ টি জেলায় বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে সকল রাজাকারদের বিচারের দাবী জানান। ‘আঞ্চলিক যুদ্ধাপরাধী নির্মূল কমিটি-বাংলাদেশ’ এর  বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ বক্তব্যে আরো বলেন, শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃতাধীন আন্দোলন ও গণজাগরণ মঞ্চের গণ দাবী ছিল, ১৯৭১ সালের সকল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিশ্চিত করা। কিন্তু জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকায় কয়েকজন যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হয়েছে। উল্লেখ্য যে,  আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ছিল, দলমত নির্বিশেষে সকল যুদ্ধাপরাধীদের আইনের আওতায় এনে গ্রেফতার ও যথাযথ বিচার সম্পন্ন করবে। এরই অংশ হিসেবে কয়েকজন রাজাকারের মাস্টারমাইন্ডদের বিচার সম্পন্ন হলেও অধিকাংশ যুদ্ধাপরাধী এখনো ধরা ছোয়ার বাইরে। জনগণ মনে করে যে, মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপট বিবেচনায় সকল দলের ভেতরে ও দলের বাইরে ঘাপটি মেরে থাকা সকল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আশু জরুরী। উল্লেখ্য যে, ১১ হাজার চিহ্নিত রাজাকারের বিচার এখনো শুরুই করা হয়নি।

pic_01

আমরা ‘আঞ্চলিক যুদ্ধাপরাধী নির্মূল কমিটি-বাংলাদেশ’ আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সকল যুদ্ধাপরাধীদের গ্রেপ্তার, বিচার করতে  ৬৪ জেলায় যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে সকল আঞ্চলিক যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিশ্চিত করার আহবান জানান।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *