September 18, 2019

শাহরাস্তির সাংহাই পেশাদার ভণ্ড প্রতারক মুনির হোসেন ও তার ভাই ইকবাল মিথ্যা পাঁচ মামলার আসামী হয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে, শশুর বাড়ির আত্মায় স্বজনরা সহ মামলার আসামি।

n6-300x200নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বহু আলোচিত পেশাদার ভণ্ড প্রতারক মুনির হোসেন ও তার ভাই ইকবাল হোসেন, পিতাঃ মৃত জোনাব আলী, সংহাই শাহরাস্তি, চাঁদপুর প্রায় ২ যুগ ধরে এলাকায় প্রতারনা ও ভণ্ডামি করে যাচ্ছে। লজিং থাকিয়া মেয়েদেরকে ফুসকাইয়া বিবাহ করেন। বাড়িতে এক শতাংশ ভূমি, ইকবাল হাজিগঞ্জ কাকিরতলা সিনিয়ার দাখিল মার্দাসার শিক্ষক শিক্ষার অন্তরালে জামাত-শিবিরের রাজনিতি চাঙ্গা করছেন। এই ইকবাল সুচিপাড়া দক্ষিন ইউনিয়নের ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক। পরবর্তিতে শিবিরে যোগদান করে। ইউ পি নির্বাচল ২০১৬ আওয়ামীলীগএর বিরুদ্ধে প্রচার প্রচারনা করেছেন সুচিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাংচুরকারীদের সাথে হাত মিলিয়ে বিদ্যারয় ম্যানেজিং কমিটি আওয়ামীলীএর সমর্থক প্রার্থির বিরুদ্ধে নির্বাচন করেছেন। পরবর্তিতে কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডে এ বিষয়ে অভিযোগ হলে ইকবাল সহ সকলের কার্যক্রম স্থগিত হয়ে যায় বলে জানা যায়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঢুকিয়া জামাত-শিবিরের রাজনিতি হাসিল করার জন্য ইকবাল তৎপর। এ বিষয়ে তার বিরুদ্ধে অভিযোগও রয়েছে। এ ইকবাল ঔষধ কোম্পানির সেলসমেন ছিলেন। এলাকায় তাহেদেরকে টাউট হিসাবে পরিচিত। তাহাদের প্রতারনা ও অর্থ আত্মস্বাতের বিরুদ্ধে ঢাকা সি এম এম ও নির্বাহী ম্যাজিষ্টেট আদালতে ৩টি মামলা রয়েছে। যাহা বিচারাধীর আছে। এই চক্রের বিরুদ্ধে গাডিয়ান বিডি নিউজের ধারাবাহিক বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশিত হওযায় ঢাকার মামলার সমন পেয়ে দিশাহারা হয়ে গার্ডিয়ান বিডি নিউজের প্রকাশক বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সম্পাদক আবু ইউসুফ পাটোযারীর বিরুদ্ধে চাঁদপুর জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে তথ্য প্রযুক্তি যোগাযোগ বিধামালা আইনে ৫৭/২ ধারায় ১টি মামলা দায়ের করেন মুনির হোসেন। মামলায় মুনির ও ইকবাল সত্য কথা গোপন রাখিয়া সাংবাদিক পরিবারের বিরুদ্ধে ১টি মামলা দায়ের করেন। ২০০৭ সালে জরুরি আইনের সময় এই চক্রদের সহায়তায় তৎকালিন শাহরাস্তি মডেল থানায় ১টি উকিল নোটিশ প্রদান করেন গার্ডিয়ান বিডি নিউজের প্রকাশকের পিতা। বঙ্গবন্ধু ন্যাশানাল ফাউণ্ডেশনের ও ঢাকা মহানগর দক্ষিন তাঁতী লীগের সাবেক সভাপতি সাংবাদিক আজিজুল হক পাটোয়ারী। ২০০৭ সালের কতিপয় পুলিশ সদস্য ও এলাকার সন্ত্রাসী ও দুর্ণীতিবাজদের সহায়তায়  আবার এই পরিবারকে ধংস করার জন্য উঠেপরে লেগেছে। আবু ইউসুফ পরিবারটি সংহাই স্কুল মসজিদ মাদ্রাসার উন্নয়নের রুপকার। মুনির ও ইকবাল অন্যদের সহায়তা ও অর্থের বিনিময়ে মির্থা মামলা দায়ের করেছে। মুনির ও ইকবাল এলাকায় বলেন ২০০৭ সালেন মতন শাহরাস্তি থানায় পুলিশের সহায়তা নিয়ে একাধিক সাজানো মামলা করবে বলে হুমকি দেয়। গত ১১-১২-২০১৬ ইং তারিখে চাঁদপুর জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে পৃথক পৃথক ২টি মামলা দায়ের করেন। ১টি হল তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭/২ ধারা যার মামলা নাম্বার- ১৪৯/১৬, অপরটি হল ১০৭ দণ্ডবিধি যার নাম্বার ৭৪৭/১৬ এই নিয়ে প্রতারক মুনির ও ইকবাল গংদের বিরুদ্ধে ৫টি মামলা দায়ের হয় । মামলা থেকে বাঁচার জন্য গত ১০ তারিখে আবু ইউসুফের আত্মীয় মোঃ শফিককে রড দিয়ে মাথায় আঘাত করেন। ইকবাল ও মুনিরের সহায়তায় এলাকার সাজাপ্রাপ্ত আসামি মোঃ দুলাল হোসেন। এই সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামীকে আশ্রয় দিয়া রাখিয়াছে মুনির ও ইকবাল। পলাতক সাজাপ্রাপ্ত আসামী দুলাল হোসেন ২০১০ সালের ১টি রাজিনামা প্রদান করেন গার্ডিয়ান বিডি নিউজ পরিবারকে। মুনির ও ইকবাল ২ জনে যোগসাজ করে মুনিরের ১ম স্ত্রীকে কেরোসিন দিয়ে আগুন লাগায়। এ নিয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতে ১টি মামলা চলছে। তাহাদের মামলা ও অভিযোগ প্রশাসনের কাছে সংরক্ষিত থাকা তথ্য প্রকাশ করায় সাংবাদিকদের নিতিগত দায়িত্ব। মুনির ও ইকবাল গং দের বিরুদ্ধে গার্ডিয়ান বিডি নিউজের যেসব সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে আদালতের মামলা দায়ের ও অভিযোগের ভিত্তিতে। গার্ডিয়ান বিডি নিউজের প্রকাশকের বিরুদ্ধে যে মামলা তথ্য প্রযুক্তি হয়েছে তথ্য প্রযুক্তি ও যোগাযোগ আইনের ৫৭/২ ধারায় কোন অংশের মিথ্যা মানহানিকারক ক্ষতিসাধন কোনকিছুই অপরাধ করেননি। গার্ডিয়ান বিডি নিউজ এর আইনজীবী বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের সিনিয়ার আইনজীবী এম এ মজিদ বলেন ৫৭/২ ধারা মামলা দায়েরের কপি আমরা সংগ্রহ করেছি। এই ধারায় কোন অপরাধ গাডিয়ান বিডি নিউজ তথা প্রকাশক বরেননি। শাহরাস্তি মডেল থানায় তদন্তের জন্য এই মিথ্যা মামলাটি গিয়েছে। কেউ যোগসাজে মিথ্যা প্রতিবেদন আদালতে আসিলে ঐ প্রতিবেদকে চেলেঞ্চ করা হবে উচ্ছ আদালতের মাধ্যমে। বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের নিয়ম অনুযায়ী সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে। গত ১১-১২-২০১৬ ইং তারিখে আজিজুল হক পাটোয়ারী মুনির হোসেন, ইকবাল হোসেন, আবুল হোসেন, তারেক এর বিরুদ্ধে তথ্য প্রযুক্তি যোগাযোগ আইনে ৫৭/২ ধারায় যে মামলাটি করেছেন তাহা আসামী ইকবাল গংরা অপরাধ করেছে। তাহার ফেউস বুকের তথ্য ও শেয়ার ট্যাগ আমাদের কাছে সংরক্ষিত। তাহাদের অপরাধের বিচার আবশ্যক হবে। মামলাথেকে বাচার জন্য সাংবাদিক আবু ইউসুফের বাড়িতে গুপ্তভাবে হামলা করার হুমকি দিচ্ছে ইকবাল গংরা। চলবে………..

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *