November 18, 2018

এইমাত্র পাওয়া সংবাদ

গার্ডিয়ান বিডি নিউজ এর সম্পাদক আবু ইউসুফ পাটোয়ারীর ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য ফেইজ বুকে দিয়ে হয়রানী করছে। হাজীগঞ্জ কাকিরতলা ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার শিক্ষক জামাত শিবিরের গুপ্তচর ইকবাল ও তার সহযোগী কামরুল তফাদার ।

13592750_299879390357854_2334822421103108185_nচাঁদপুর থেকে ফিরে এসে জাহাঙ্গীর আলম। শাহরাস্তি উপজেলা সাংহাই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি, গার্ডিয়ান বিডি নিউজের সম্পাদক/প্রকাশক, সদস্য ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন জাতীয় প্রেসক্লাব। সত্ত্বাধিকারী আজিজুল হক পাটোয়ারী কন্সট্রাকশন এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ঠিকাদার বাংলাদেশ বিদ্যুত বিভাগ জা¦লানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয়। সম্ভাব্য সদস্য পদ পার্থী চাঁদপুর জেলা পরিষদ। সহ সম্পাদক বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ এর বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য ফেইজ বুকে দিয়ে ব্যাপক হয়রানী করছেন এবং সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে।

15094861_1616639638637029_72373110312754417_nমধ্যপ্রাচ্য ও দেশে এই চক্ররা রহিছে। কাতারে বসিয়া সাংহাই গ্রামে জামাত শিবিরের সহযোগী ইকবাল এর সহযোগীতায় কামরুল তফাদার মিথ্যা তথ্য ফেইজ বুকে দিচ্ছে। এই বিষয়ে আবু ইউসুফ পাটোয়ারী টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয় একটি অভিযোগ কামরুল তফাদার ও তার সহযোগী ইকবাল এর বিরুদ্ধে করেন। এছাড়া ইকবাল ও তার ভাই মনিরের বিরুদ্ধে ঢাকা সি.এম.এম আদালতে মামলা দায়ের এবং শাহবাগ ও সবুজবাগ থানায় পৃথক পৃথক ডায়রী করা হয়। ইকবাল এখন দিশাহারা হয়ে তাহার আইডি ফেইজ বুক থেকে তথ্য না দিয়ে নিজ ভাই মনিরের নামে ফেইজ বুক খুলে ইউসুফ পাটোয়ারীর বিরুদ্ধে গুপ্তভাবে লেখালেখী করছে। এবং কাতারে কামরুলের কাছে তথ্য দিচ্ছেন। আর কামরুল বিদেশে থাকিয়া একটি সাংবাদিক পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য ফেইজ বুকে দিচ্ছেন। এই কামরুল নরিংপুর গ্রামের আবুল বাশার তফাদারের সন্তান বলে জানা যায়। ইকবাল পূর্বে হামদর্দ দাওয়াখানার সেলস্ ম্যান হিসেবে নোয়াখালী থাকা অবস্থায় অর্থ আত্মসাত করে পালিয়ে আসে পরবর্তীতে শ্বশুড় মফিজের জমাজমি বিক্রি করে হামর্দদ এর অর্থ পরিশোধ করেন। তাহার দেনার ভয়ে শ্বশুড় মফিজ মৃর্ত্যু বরণ করেন। এই ইকবাল সচিপাড়া দক্ষিন ইউনিয়ন এর ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিজয়ী প্রার্থী মাসুদের নির্বাচন করেন। এর  পূর্বে তিনি শিবিরের সহযোগী ছিলেন। এছাড়া ইকবালের পিতা জুনাব আলীকে নির্যাতন করেন। এরপর তিনি মৃর্ত্যুবরণ করেন। ভাই মনিরের স্ত্রী কে রাজিয়া কে কেরসিন গায়ে দিয়ে আগুন লাগিয়ে দেন। যাহা নিয়ে চাঁদপুর আদালতে মামলা চলছে। ইকবাল নিজেই বিএসসি পাশ দাবি করেন। এলাক বাসী জানায় কোথায় থেকে লেখাপড়া করছে কেউ জানে না। তাহার শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ পরীক্ষা নিরীক্ষার প্রয়োজন। কলেজ ইস্কুলে লেকাপড়া দাবি করে ইকবাল এখন নাকি মাদ্রাসার শিক্ষক। মাদ্রাসায় শিক্ষকতার নামে জঙ্গি জামাত শিবিরের গুপ্তচর হয়ে কাজ করছেন। তিনি হাজীগঞ্জ উপজেলার কাকিরতলা ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার শিক্ষক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। এর পরে আরও কয়েকটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন গোমর ফাঁস হলে চলে যায় অন্য মাদরাসায় এর রহস্য কি বলে জানায় এলাকাবাসী। ইকবাল যে সব কলেজ থেকে পড়াশোনা করছেন ঐ সব তথ্য সংগ্রহের জন্য গার্ডিয়ান বিডি নিউজের সংবাদকর্মী রয়েছে। তিনি চিতেশী ডিগ্রি কলেজ থেকে নাকি বিএসসি পাশ করেছেন তাহা নাকি মিথ্যা বলে জানায় এলাকাবাসী। মাদ্রাসা শিক্ষকতার অন্তরে জামাত শিবির জঙ্গীদের মদদ দিচ্ছে ইকবাল। আর বিদেশে সহযোগী নিয়োগ করছেন কামরুল তফাদারকে। আর ভাই মনিরকে শাহরাস্তি উপজেলার কতিপয় বড় ভাইদের আশির্বাদ নেওয়ার জন্য ঘুরিয়া দেড়াচ্ছে এই মনির শাহরাস্তি ভুমি অফিসের দালাল ভূয়া দলিল লেখক এলাকায় ভন্ড মনির হিসেবে জানে। ইকবাল প্রায় তিন যুগ শ্বশুড় বাড়িতে ঘর জামাই হইয়া থাকে বাড়িতে এক শতাংশ ভূমি নেই। সকাল বেলা বাড়ি থেকে বের হয় আর রাত ১২টায় ঘরে ফিরে দেনাদারদের ভয়ে। চলবে।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *