May 27, 2018

এইমাত্র পাওয়া সংবাদ

হিজাব পরা মুসলিম নারীর ওপর ব্রাসেলসের রাস্তায় বর্বর হামলা

ব্রাসেলসের পথচারী মুসলিম নারীর ওপর বর্বর গাড়িহামলা চালিয়েছে চরম ডানপন্থী এক শ্বেতাঙ্গ জঙ্গি। হামলায় মারাত্মক আহত হয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তায় ছিটকে পড়েন তিনি। অবশ্য পুলিশ তার অবস্থা সম্পর্কে কিছু জানাচ্ছে না  :ইন্টারনেট 

 

 

 

 

 

ব্রাসেলসের পথচারী মুসলিম নারীর ওপর বর্বর গাড়িহামলা চালিয়েছে চরম ডানপন্থী এক শ্বেতাঙ্গ জঙ্গি। হামলায় মারাত্মক আহত হয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তায় ছিটকে পড়েন তিনি। অবশ্য পুলিশ তার অবস্থা সম্পর্কে কিছু জানাচ্ছে না :ইন্টারনেট

ব্রাসেলসের মলেনবিক এলাকায় গতকাল নিষিদ্ধ ঘোষিত ইসলামবিরোধী বিক্ষোভ চলাকালে এক চরম ডানপন্থী জঙ্গি একজন পথচারী নিরীহ মুসলিম নারীকে তার কার দিয়ে প্রচণ্ড জোরে আঘাত করেছে।
এ ঘটনায় ওই মহিলা রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তায় ছিটকে পড়েন। এ সময় গাড়িটি নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে হামলাকারী জঙ্গি। একজন যাত্রী এ ভয়াবহ ঘটনার ছবি তুলেন।
ভিডিওতে দেখা গেছে যে, সাদা রঙের গাড়িটি পুলিশের রাস্তার প্রতিবন্ধক ভেদ করে ছুটে যেয়ে রাস্তা অতিক্রমকারী হিজাব পরা এক মুসলিম নারীকে সামনে থেকে আঘাত করছে। তিনি কারের বোনেটের ওপর পড়ে যাওয়ার পর গাড়িটি তাকে ঠেলে নিয়ে যায়। এসময় তিনি রাস্তায় ছিটকে পড়েন। তারপরও কারটির চালক তার দিকে গাড়ি চালিয়ে যায় এবং তার পায়ের ওপর দিয়ে গাড়ি নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে বলে মনে হয়। একজন যাত্রী গাড়ির জানালা দিয়ে মাথা বের করে এ দৃশ্য ধারণ করেন বলে মনে হয়েছে।
হামলায় ওই মহিলা মারাত্মক আহত হয়েছেন, তবে তিনি জ্ঞান হারাননি বলে জানা গেছে। হামলাস্থলেই তার চিকিৎসা দেয়া হয়। তবে পুলিশ মহিলার অবস্থা অথবা হামলাকারীর উদ্দেশ্য সম্পর্কে কিছুই জানায়নি। মলেনবিকের স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ইসলামবিরোধী বিক্ষোভ ও তার পাল্টা বিক্ষোভ নিষিদ্ধ করার পর ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছিল। তবে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে প্রায় ৪০০ চরম ডানপন্থী শ্বেতাঙ্গ মলেনবিক এলাকায় জড়ো হয়ে ইসলামবিরোধী স্লোগান দিতে শুরু করে। এতে সেখানকার মুসলিম বাসিন্দারা রাস্তায় নেমে আসে। দাঙ্গা পুলিশ দুই পক্ষের মধ্যে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। তবে শ্বেতাঙ্গ গাড়িচালক প্রতিবন্ধকতা ভেঙে তার গাড়ি নিয়ে রাস্তা পারাপাররত হিজাবধারী মুসলিম নারীকে প্রচণ্ড গতিতে এসে আঘাত করে। চিকিৎসকেরা তার কাছে ছুটে যায় এবং বেলজিয়ামের গণমাধ্যম জানিয়েছে যে, হামলাকারীকে পুলিশ আটক করেছে।
প্যারিস ও ব্রাসেলস হামলার সাথে জড়িত জঙ্গিদের কয়েকজনের সাথে এই এলাকার সম্পর্ক থাকায় এলাকাটি ‘ইউরোপের ইসলামী জঙ্গিদের রাজধানী’ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। প্যারিস হামলায় জড়িত একমাত্র জীবিত সন্দেহভাজন সালাহ আবদুস সালামকে গত ১৮ মার্চ মলেনবিক এলাকা থেকে আটক করা হয়। তিনি চার মাস ধরে পালিয়ে বেড়াচ্ছিলেন। আবদুস সালাম অবশ্য আগেভাগেই ব্রাসেলস হামলার বিষয় জানা থাকার কথা অস্বীকার করেছেন।
কর্তৃপক্ষ ব্রাসেলস বিমানবন্দর ১২ দিন বন্ধ থাকার পর রোববার তা আবার চালুর ঘোষণা দেয়ার পর রাস্তায় মহিলার ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। বেলজিয়ামের বিমানবন্দর ও মেট্রোস্টেশনে আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৩২ জন নিহত হয়। আহত হয় দুই শতাধিক।
প্যারিসের ব্যাঙ্গাত্মক ম্যাগাজিন শার্লি এবদোর কার্যালয়ে ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে হামলা এবং এরপর নভেম্বরে প্যারিসে হামলার ঘটনার পর ইউরোপে ইসলামভীতি ও মুসলমানদের ওপর হামলা-হয়রানি ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। গত মাসে ব্রাসেলসে হামলার ঘটনা ইসলামভীতি আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। অথচ এসব হামলার জন্য দায়ী জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) হামলার শিকার লোকদের বেশির ভাগই মুসলমান। তারা হাজার হাজার মুসলমানকে হত্যা ও লাখ লাখ মুসলমানকে বাড়িঘর থেকে বিতাড়িত করেছে।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *